মোবাইল ব্যাংকিং যেন জালিয়াতি | Bahumat

মোবাইল ব্যাংকিং যেন জালিয়াতি

মোবাইল ব্যাংকিং

বিজ্ঞান আমাদের জন্য অনেক সুখ ও সমৃদ্ধি বয়ে আনার পাশাপাশি সেই সুখের সাথে অনেক বিপত্তিও নিয়ে আসে। বড় বড় পাহাড় ভাঙ্গার জন্য যখন ডাইনামাটের ব্যবহার করা হল তখন মানুষ সেই ডাইনামাইট একে-অপরকে ধ্বংস করার কাজে ব্যবহার করল। ঠিক তেমনি অনেক কিছু আমাদের সাহায্য করার জন্য তৈরি করা হলেও তা আমাদের ক্ষতির কারণ হচ্ছে।দূর-দূরান্তে থেকেও মানুষ একে-অপরের অনেক কাছে এই ফোনের মাধ্যমে। কিন্তু এখানেও জালিয়াতি চক্রের রীতিমত বিস্তার রয়েছে। আমরা ফোনে শুধু কথা বলি না, এর পাশাপাশি অনেকে বিকাশ ও মোবাইল ব্যাংকিংও করে থাকেন।তখনি শুরু হয় বিপত্তি। প্রতিটি সিমে কোম্পানির নিজস্ব কিছু নাম্বার থেকে ফোন আসে। কিন্তু এখন একেক অফারের সাথে সাথে অনেক নাম্বার থেকে ফোন আসে। তাই বোঝা যায় না, কোনটি কোম্পানির করা ফোন এবং কোনটি জালিয়াতি চক্রের তা বোঝা মুশকিল।প্রতারণার ঘটনা প্রায়ই শোনা যায়। তারমধ্যে একটি হল, ডিবিবিএল এর হেল্পলাইন থেকে আপনার নাম্বারে ফোন করে বলা হবে যে কারিগরি কিছু ত্রুটির কারনে আপনার একাউন্টটি তারা ডিএক্টিভ করে দিবে এবং আপনার অ্যাকাউন্টে থাকা টাকাও আর উত্তোলন করতে পারবেন না।তবে তারা কিছু প্রোসেস আপনাকে অনুসরণ করতে বলবে যার মাধ্যমে আপনি টাকা তুলতে পারবেন বুথ থেকে। আর আপনি এদের এই প্রোসেস ফলো করবেন তো আপনার একাউন্টের কন্ট্রোল তাদের কাছে চলে যাবে। সাথে আপনি হারাবেন আপনার একাউন্টে থাকা সকল টাকা । এরা এত দ্রুত আপনার শেষ ট্রানজিকসন বলে দিবে, যে আপনি কত টাকা লেনদেন করেছেন বা কোথা থেকে করেছেন সব বিস্তারিত বলে দিবে।এ ব্যাপারে ব্যাংক থেকে বলা হচ্ছে তাদের হেল্পলাইন ১৬২১৬ থেকে তারা কোন গ্রাহক কে কখনই কল করে না। এটা কোন অসাধু চক্রের কাজ । তাই কখনোই নিজের একাউন্টের তথ্য অন্য কাউকে দিবেন না।

Top